Bengali remedies for burping – ঢেকুর/ দূর করার ঘরোয়া উপায়

যখন আমাদের শরীরে অতিরিক্ত গ্যাস হয়ে খাদ্যনালীতে জমে থাকে এবং পেটে পৌঁছাতে পারেনা, তখন আমাদের শরীর অতিরিক্ত গ্যাস একটা প্রক্রিয়ার মাধ্যমে বের করে যাকে ঢেকুর বা উদ্বমন বলা হয়। নিজের বন্ধুদের সামনে বা রাস্তা ঘটে ঢেকুর নেওয়া অনেক লজ্জাজনক হয়ে পড়ে এবং এটা কোনো গর্বের বিষয় না, অতএব যদি আপনার ঢেকুর বা উদ্বমনের অভ্যেস আছে তো এটা দূর করার কিছু উপায় জানা উচিত।

ঢেকুরের সমস্যা কম করার জন্যে জরুরি অভ্যেস (Habits to inculcate in order to reduce burping)

  • খাওয়ার সময় ধীরে ধীরে খাওয়ার অভ্যেস করুন। নিজের খাওয়ার ধীরে ধীরে চিবিয়ে খান। এতে আপনি কম মাত্রা হাওয়া শরীরের ভেতরে প্রবেশ করাবেন।
  • যেই লোকেরা চ্বিংগম খায় ওদের মধ্যে ঢেকুর নেওয়ার সমস্যা দেখা যায়। অতএব যদি আপনি ও এদের মধ্যে পরেন তাহলে এটা ছাড়ুন কেননা আপনার মুখের একটা ভাগ হাওয়া শরীরে প্রবেশ করায়।
  • সবার জন্যে ভারী খাওয়ারের পড়ে একটু হাঁটাচলা অনেক ভালো হয়, কেননা এতে আপনার শরীরে থাকা গ্যাস, যার ফলে ঢেকুর ওঠে, অনেকটা হাল্কা হয়ে যায়।
  • যদি আপনি ধূম্রপান করেন তাহলে আপনি নিশ্চই অনেক ঢেকুর তুলবেন। যদি আপনি নিজেকে সবার সামনে এইভাবে লজ্জায় পড়া থেকে বাচাতে চান তাহলে ধূম্রপান ছাড়ুন অথবা দিনে একটা সিগার বা সিগারেটের (cigar or cigarette) থেকে বেশি খাবেননা।

চিকিত্সার ঘরোয়া উপায় (Home remedies for treatment)

আমরা নিজের মুখ্য উদ্দেশ্যে ফিরে আসি যেখানে কিছু ঘরোয়া উপায় জানা আপনাদের জন্যে অনেক উপকারী থাকবে।

আদা (Ginger)

ঢেকুরের সমস্যার চিকিত্সা কার জন্যে আদা অনেক উপকারী সিদ্ধ হয় এবং এটা সবার বাড়িতে পাওয়া যায়। এই চিকিত্সার জন্যে আদা পাতলা পাতলা টুকরোয় কাটুন এবং এগুলো এক কাপ গরম জলে এগুলো মেশান. এবার কাপ ঢেকে নিন এবং আদার টুকরো প্রায় ১০ মিনিট অব্দি ভিজিয়ে রাখুন. এরপরে আদার জল বের করে নিন এবং এতে লেবুর রসের কিছু ফোঁটা এবং এক চামুচ মধু মেশান. আদার ঢেকুর কমানোর গুন ঢেকুরের কারণ হউয়া গ্যাস কম করে, অতএব এই পূরক ঔষধি তখন ভালো কাজ করবে যখন এটাকে উপরোক্ত ভাবে দিনে ২-৩ বার নেওয়া হয়।

টক/প্রোবায়োটিক খাদ্য উত্পাদ (Sour/Probiotic food products)

দই, আচার এবং মটকার মতন খাদ্য উত্পাদের আমাদের পাচন প্রণালীর উপরে অনেক ভালো প্রভাব পড়ে। এগুলো আমাদের শরীরের ব্যাকটেরিয়াল (bacterial) স্তর বানিয়ে রাখে কেননা ব্যাকটেরিয়া গ্যাসের মাত্রা বাড়ায়। অতএব যদি এরকম উত্পাদ নিয়মিত রূপে নেওয়া হয় তাহলে এটা আপনার শরীরে ব্যাকটেরিয়ার অতটা মাত্রা বানিয়ে রাখে যতটা আপনার দরকার।

মেন্থল (Peppermint)

আরেকটা প্রাকৃতিক উপায় যেটা ঢেকুরের সমস্যা দূর করে ওটা হলো মেন্থল। মেন্থল ভালো পাচনের জন্যে পিত্তের প্রবাহ ভালো করে কিন্তু এটা তার ব্যবহার করা নিশেধ যার পাথুরি-রোগ আছে। এটা ব্যবহার করার জন্যে এক কাপ গরম জলে আদা চায়ের মতনই এক চামুচ শুকনো মেন্থল মিশিয়ে নিন। এটাকে ১০ মিনিটের জন্যে ঢেকে নিন। ব্যবহার করার আগে মেন্থল ছেকে নিন আর ভালো পরিনামের জন্যে দিনে এটা ২-৩ বার সেবন করুন।

ক্যামোমিল (Chamomile)

ক্যামোমিল আরেকটা প্রাকৃতিক ঔষধি যা পেটের গ্যাসের সমস্যা দূর করাতে সাহায্য করে যার ফলে ঢেকুর ওঠে। যাদের অন্ত্রে খেন্চুনি হয় তাদের জন্যও ক্যামোমিল চা খাওয়া খুব ভালো। ক্যামোমিল চা বানানোর জন্যে বাজার থেকে ক্যামোমিল চায়ের ব্যাগ নিয়ে আসুন এবং এক কাপ গরম জলে একটা চায়ের ব্যাগ দিন। এটাকে ৫-১০ মিনিট অব্দি রাখুন এবং এরপরে চায়ের ব্যাগ সরিয়ে চা খেয়ে নিন। ভালো পরিনামের জন্যে এই চা দিনে ২-৩ বার খান।

এলাচ (Cardamom)

একবারে ২-৩টে এলাচ চিবোলে পেতে পাচন রস তৈরী হয়, অতএব আপনাকে নিয়মিত রূপে এলাচ চিবোনো উচিত। আপনি এলাচ পাউডার গরম জলে মিশিয়েও চা হিসেবে পান করতে পারেন।